মেডিকেলে না গিয়েও তিনি ছিলেন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ!


ভোলা প্রতিনিধি,কান্ট্রি ডেস্ক | Published: 08:32 PM, September 08, 2018

IMG

এমবিবিএস ডাক্তার না হয়েও তিনি ডাক্তার, এফসিপিএস (কোর্স) ডিগ্রি না নিয়েও বুক উচিয়ে লেখেন এফসিপিএস ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। ৮শ থেকে এক হাজার টাকা ফি নিতেন রোগীদের কাছ থেকে। এমন এক ভুয়া ও প্রতারক পল্লী চিকিৎসককে আটক করা হয়েছে। তার নাম কামরুল আলম।

শুক্রবার দুপুরে ভোলার দৌলতখান উপজেলার লাইফ কেয়ার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার অ্যান্ড কনসাল্টেশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানে বসে রোগী দেখা ও উচ্চহারে ফি নেয়ার সময় শুক্রবার তাকে আটক করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জীতেন্দ্র কুমার নাথ।

তদন্তে প্রমাণিত হয় তিনি ভুয়া সনদ ব্যবহার করছেন। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকারও করেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তার এক বছরের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

কামরুল আলম এমবিবিএস ও এফসিপিএস সনদধারী হিসেবে পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন রোগীদের চিকিৎসাপত্র দিয়ে আসছিলেন। এমনকি তার নামের আগে যৌনরোগ ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ উল্লেখ রয়েছে।

তিনি নিজেকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে কর্মরত বলে প্রথমে দাবি করেন।

তদন্তে জানা গেছে, ওই নামের এবং নিবন্ধনে কোনো ডাক্তার নেই। প্রতারক কামরুল আলমের বাড়ি কুমিল্লা জেলার চান্দিনা এলাকায়। তিনি শুক্র ও শনিবার দৌলতখানের ওই ডায়গনস্টিক সেন্টারে এসে ৮শ টাকা ফি নিয়ে রোগী দেখতেন। এমনকি একাধিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে হাতিয়ে নিতেন বিপুল অংকের টাকা।

ভোলার সিভিল সার্জন ডা. রথীন্দ্র নাথ মজুমদার জানান, দুই মাস আগে তিনি ওই ডায়গনস্টিক সেন্টারে গিয়ে ওই ডাক্তারের মূল সনদপত্র তাকে দেখানোর জন্য নির্দেশ দিয়ে এলেও সেন্টার মালিকপক্ষ তা করেনি।










স্বাস্থ্য বিভাগের আরও সংবাদ