দুই দশকের মধ্যে মঙ্গলে মানুষ পাঠাতে চায় নাসা


, | Published: 08:43 PM, October 01, 2018

IMG

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা গতকাল সোমবার গৌরবজ্জল ৬০ বছর অতিক্রম করেছে। এ সময়ের মাঝে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি মহাকাশের বিশাল অংশ নিজেদের দখলে নিয়েছে। চাঁদে পাঠিয়েছে মানুষ। মঙ্গলে পাঠিয়েছে রোভার। এবার সংস্থাটি মানুষের পদচিহ্ন ফেলতে চায় মঙ্গলপৃষ্ঠে। আগামী দুই দশকের মধ্যে লাল গ্রহটিতে মানুষ পাঠাতে চায় নাসা।

নাসার এই ৬০ বছরে ২০ বছরই গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন চার্লস বলডেন। ১৯৮০ থেকে ৯৪ সাল পর্যন্ত মহাকাশচারী হিসেবে অংশ নিয়েছেন ৪টি মিশনে। দুটিতে ছিলেন পাইলট আর বাকি দুটিতে কমান্ডার। ২০০৯ থেকে ১৭ পর্যন্ত দ্বায়িত্ব পালন করেছেন এজেন্সিটির প্রধান হিসেবে। এ দ্বায়িত্ব পালনকালে তিনিই ৩০ দশকের মাঝামাঝি মঙ্গলে মানুষ পাঠানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করেন। তিনি মনে করেন, নাসা তাদের লক্ষ্যে অবিচল রয়েছে।

তবে চার্লস বলডেন মনে করেন, মানুষের মঙ্গলে যাবার পূর্বে আবারও চাঁদে যাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। তিনি বলেন, ‘নাসা এবং ট্রাম্প প্রশাসন মানুষকে আবারও টণ্দ্রপৃষ্ঠে নিয়ে যাওয়ার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে। আমি মনে করি এটি জরুরী। কারো কারো কাছে মানুষকে মঙ্গলে নেয়া জরুরী নাও মনে হতে পারে। কিন্তু আমার দৃষ্টিতে এর চাইতে বড় পদক্ষেপ আর হয় না।’

চার্লস বলডেন আরো মনে করেন, মঙ্গলের পথে মানুষকে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে পারে বেসরকারী মহাকাশ সংস্থাগুলো। নাসাও তাদের সাথে সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে পারে। তবে নাসা মার্কিণ জনগনের করের অর্থে কাজ করে। এ কারণে তাদের জন্য বৈশ্বিকভাবে কাজ করা একটু কঠিন। এরপরেও নাসা যদি অন্য আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর সাথে কাজ করে তবে মঙ্গলে যাওয়া আরো সহজসাধ্য হবে। সিএনবিসি