বিশ্ব প্রতিযোগিতা সক্ষমতায় পিছিয়েছে বাংলাদেশ


, | Published: 05:38 PM, October 17, 2018

IMG

বিশ্ব প্রতিযোগিতা সক্ষমতা রিপোর্টে আগের চেয়ে এক ধাপ পিছিয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের প্রকাশিত এ রিপোর্টে বলা হচ্ছে দূর্নীতি এখনো বাংলাদেশে বড় চ্যালেঞ্জ। আর বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা বলছেন, অর্থপাচার আগের চেয়ে বেড়েছে। আরো দুর্বল হয়েছে আর্থিক খাত। গ্লোবাল কমপিটিটিভনেস রিপোর্ট ২০১৮ তে উঠে এসেছে এ তথ্য।

সারা বিশ্বে একযোগে প্রকাশিত এই রিপোর্টটি বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে ধরে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ- সিপিডি।  নতুন পদ্ধতিতে করা এই  সক্ষমতা সুচকে ১৪০টি দেশের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র শীর্ষে থাকলেও, বাংলাদেশের অবস্থান আগের চেয়ে এক ধাপ নিচে নেমে হয়েছে ১০৩। অবশ্য এক্ষেত্রে বাংলাদেশকে পেছনে ফেলেছে ভারত। কেন বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়েছে- এর ব্যাখ্যাও আছে রিপোর্টে।

তবে বৈশ্বিক অবস্থানে নিচে থাকলেও অবকাঠামো সামস্টিক স্থিতিশীলতা আর বাজারের আকার বাড়ানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আগের চেয়ে উন্নতি করেছে। তবে, তা যথেষ্ট নয়।

রিপোর্ট তৈরিতে বাংলাদেশের ৮৩টি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তথ্য উপাত্ত নিয়েছে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম। যেখানে ব্যবসায়ীরা অর্থপাচার, আর্থিক খাতের দূর্বলতা, দুর্নীতি, দক্ষতা প্রযুক্তিসহ নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেছেন। সিপিডি মনে করছে এসব বিষয় প্রবৃদ্ধিকে দুর্বল করছে।

এমন বাস্তবতায় সিপিডি  পরামর্শ দিচ্ছে, পরিস্থিতির উত্তরনে দরকার দূর্নীতি নিয়ে সরকারের অবস্থান পরিস্কার করা, আর নির্বাচনী ইশতেহারে আর্থিক খাত সংস্কারের বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়া।