জনস্রোতে অশ্রসিক্ত বিদায় আইয়ুব বাচ্চুর


রাজধানী প্রতিবেদক, সেন্ট্রাল ডেস্ক | Published: 07:08 PM, October 19, 2018

IMG

এই শেষ সুযোগ, শেষবার দেখা যাবে আইয়ুব বাচ্চুকে। শহীদ মিনারে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে তাই ভক্ত ও সাধারণের লাইন ছাড়িয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফটক।

সবাই শেষবার দেখতে চান আইয়ুব বাচ্চুকে। দেশের ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি তিনি। কণ্ঠে, সুরে, লেখায় ও গিটারে যিনি শ্রোতাদের মাত করে রেখেছেন দশকেরও বেশি সময়।

এই কিংবদন্তি অদেখালোকে পারি জমিয়েছেন গতকাল (১৮ অক্টোবর) সকালে সাড়ে ৯টায়। শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ রাখা হয় শহীদ মিনারে। তাকে শ্রদ্ধা জানাতে কে আসেননি! সব শ্রেণী-পেশার মানুষ এসেছেন ব্যান্ড লেজেন্ডকে শেষবার শ্রদ্ধা জানাতে।

পরিচিত শিল্পী ও কলাকুশলিরা ছাড়াও আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন নাট্য পরিচালক ও অভিনয় জগতের মানুষরা।

ছোট পর্দার জনপ্রিয় পরিচালক ও অভিনেতা সালাহউদ্দিন লাভলু। পাশাপাশি বাড়িতেই থাকতেন আইয়ুব বাচ্চু ও লাভলু। যৌবনে বাচ্চুর গান শুনেই কেটেছে লাভলুর। যখন পরিচালনায় এলেন তখন কাজ করা হয়েছে একসঙ্গে। লাভলু জানালেন, আইয়ুব বাচ্চুর একটি মিউজিক ভিডিওতে ক্যামেরা ধরেছিলেন সালাহউদ্দিন লাভলু। পরে লাভলু যখন বিজ্ঞাপন বানান, তখন তার জন্য জিঙ্গেল করে দিয়েছিলেন আইয়ুব বাচ্চু।

স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে সালাহউদ্দিন লাভলু বলেন, ‘আমরা অন্য পেশার মানুষ হলেও তার শিল্পে মুগ্ধ ছিলাম আমরা।’

সময়ের আলোচিত নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল, নাটক পরিচালনায় আসার আগে মিউজিকের সঙ্গে ছিলেন তিনি। ‘মেঘদল’ নামে ব্যান্ড ছিল তাদের। তারাও অনুপ্রাণিত হতেন আইয়ুব বাচ্চুর সংগীতে, গানে। উজ্জ্বল বলেন, ‘বাচ্চু ভাইয়ের একটা মিউজিক ভিডিও দেখেছিলাম। যেখানে তিনি সাদা পোশাক পরে হাঁটু ভেঙে গিটার বাজাচ্ছিলেন। ওই দৃশ্যটা আমাকে অনুপ্রাণিত করেছিল তার মতো হওয়ার জন্য।’

এভাবে লাখো মনে স্বপ্নের বীজ বুনে দিয়ে গেছেন আইয়ুব বাচ্চু। তিনি চলে গেছেন কিন্তু তার স্বপ্ন, দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিয়ে গেছেন সংগীতের মাধ্যমে।

যাদের মাঝে সেই স্বপ্ন-অনুপ্রেরণা প্রবাহিত হচ্ছে তারাই আইয়ুব বাচ্চুকে শেষ বিদায় দিয়েছেন বাদ জুমা। জাতীয় ঈদগাহ মাঠে হয়েছে আইয়ুব বাচ্চু প্রথম নামাজে জানাজা। এরপর তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় মগবাজারে। সেখানে আইয়ুব বাচ্চুর স্টুডিও এবি কিচেনে তার মরদেহ রাখা হয় কিছুক্ষণের জন্য।

বাদ আসর আইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয় চ্যানেল আইতে। তার মরদেহ রাখা হয়েছে স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে। শনিবার (২০ অক্টোবর) মরদেহ নেওয়া হবে চট্টগ্রামে। সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশে সমাহিত করা হবে আইয়ুব বাচ্চুকে।