ঝিনাইদহে নির্মাণের এক যুগ পরেও চালু হয়নি একমাত্র শিশু হাসপাতালটি


, | Published: 05:04 PM, October 28, 2018

IMG

ঝিনাইদহে নির্মাণের এক যুগ পরেও চালু হয়নি ২৫ শয্যার একমাত্র শিশু হাসপাতালটি। অযত্ন আর অবহেলায় পরিত্যক্ত হয় পড়েছে সেটি। ফেরত গেছে সব চিকিৎসা সরঞ্জাম। সব কিছু ঠিক থেকেও কেন চালূ হচ্ছে না হাসপাতালটি।

কোনো পড়োবাড়ি বা গৃহপালিত পশুর খামার নয় । ঝিনাইদহের ২৫ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি শিশু হাসপাতাল এটি। শহরের বাস টার্মিনালেরর পাশে সাড়ে ৫ কোটি টাকায়  ২০০৫ সালে শুরু হয় এর নির্মাণ কাজ। এক বছরের মাথায় কাজ শেষ হলে হস্তান্তর করা হয় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে। ২০০৮ সালে হাসপাতালের জন্য অধিদপ্তর থেকে চিকিৎসার নানা যন্ত্রপাতিসহ আসবাবপত্রও চলে আসে। কিন্তু শুধূমাত্র পদায়ন না হওয়ায় এাতদিনেও চালু হয়নি হাসপাতালটি।  অযত্ন অবহেলায় ফেরত চলে গেছে অনেক  যন্ত্রপাতি। এখন গরু ছাগলের চারণভূমিতে পরিনত হয়েছে হাসপাতাল চত্বর।

সিভিল সার্জন ডা: রাশেদা সুলতানা, জানান, কয়েক বছর আগে বহি:বির্ভাহগ চালু  হলেও তা আর নিয়মিত হয়নি। এরপর দুই ধাপে ৫চিকিৎসকসহ  কিছূ পদ সৃষ্টি করা হয়। কিন্তু পদায়ন না হওয়ায় নিয়োগের বিষয়টি সেখানেই থেমে যায়।  এখন কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার দিয়ে কোনোমতে চলছে চিকিৎসাকাজ।

জেলার সদর হাসপাতাল ও কয়েকটি ক্লিনিকেই রোগীর চাপ সবসময়েই বেশি  সরকারিভাবে একটি শিশু হাসপাতালে হওয়ায় স্বস্তি এসেছিলো মানুষের মনে।  তাই হাসপাতালটি দ্রু চালুর দাবি জানালেন এলাকাবাসী ।