খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না


, | Published: 08:00 PM, October 30, 2018

IMG

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় প্রধান আসামী হিসেবে খালেদা জিয়ার ৫ বছরের সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করেছেন হাইকোর্ট। এর ফলে খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষ। একই সঙ্গে তারেক রহমানসহ এ মামলার অন্য পাঁচ আসামির প্রত্যেককে দেয়া ১০ বছরের সাজাও বহাল রেখেছেন উচ্চ আদালত।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে সরকারি ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এ বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ৫-এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। একই সঙ্গে তার ছেলে ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানসহ অন্য পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ছয় আসামির প্রত্যেককে জরিমানা করা হয়, ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা করে।

এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন ২০ ফেব্রুয়ারি। পরে ১২ মার্চ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও শহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়াকে ৪ মাসের জামিন দিয়ে আপিল শুনানি শুরু করতে বলেন। নথিপত্র তৈরির পর ১২ জুলাই থেকে আপিল শুনানি শুরু হয়, শেষ হয় ২৯ অক্টোবর। ৩২ কার্যদিবস যুক্তিতর্ক উপস্থাপনে বিএনপির আইনজীবীরা ২৮ দিন শুনানির সুযোগ পান। আপিল বিভাগ প্রথমে ৩১ জুলাই ও পরে ৩১ অক্টোবরের মধ্যে আপিল নিষ্পত্তির আদেশ দিলেও ৩০ অক্টোবর রায়ের দিন দেন আদালত। এরই ধারাবাহিকতায় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়ার ৫  বছরের সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করে রায় দেন মঙ্গলবার।

রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তার অ্যাটর্নি জেনারেল এরও একই কথা, সাজা মওকুফ ছাড়া নির্বাচন করার সুযোগ নেই খালেদা জিয়ার।










রাজনীতি বিভাগের আরও সংবাদ