এ আঘাত বাংলাদেশের উপর, পদাঘাত মুক্তবুদ্ধি চর্চায়!


, | Published: 04:17 PM, March 05, 2018

IMG

আক্রান্ত বাংলাদেশ। পদাঘাত মুক্তবুদ্ধি চর্চায়। জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে এই মন্তব্য শিক্ষাবিদ ও সামাজিক সংগঠনের। তারা বলছেন, দ্বিতীয় বারের মতো বুদ্ধিজীবী হত্যার চক্রান্ত শুরু হয়েছে।

অন্যায়ের প্রতিবাদ কিংবা সামাজিক ইস্যুসহ জাতির ক্রান্তিকালে জেগে ওঠে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির ডাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণকেন্দ্রে সেই পাদদেশে হাজির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। জাফর ইকবালের ওপর হামলার কেবল প্রতিবাদই নয়, পেছন থেকে যারা কলকাঠি নাড়ছে, তাদের গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়। বক্তারা বলছেন, ধর্মান্ধ, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে না পারলে দেশ মিনি পাকিস্তানে পরিণত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, এবারের জঙ্গি তৎপরতা ও আগের গুলোর মধ্যে মৌলিক পার্থক্য আছে। এবার রাজনৈতিক তৎপরতাও যুক্ত হতে পারে। তাই সেটি খতিয়ে দেখা দরকার।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি, মাকসুদ কামাল বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধ জানে না, বিজ্ঞানমনস্ক হতে চায় না, তারা অংশ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বারবার আঘাত। এটি আন্তর্জাতিক চক্রান্তও বটে।

ঘুম নেই শাহবাগেরও। সেখানে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের জাতীয় ধিক্কার সমাবেশে যোগ দেন সমাজের নানা শ্রেণী ও পেশার মানুষ। তারা বলছেন : ধর্মান্ধরা আসল ধর্মকে মাটি চাপা দিয়ে, যে ধর্ম মানুষকে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব ভাবতে শেখায় না, সেটি বেছে নিয়েছে। কেন জঙ্গিবাদের মূল উৎপাটন করা যাচ্ছে না, সরকারের কাছে এমন প্রশ্ন রাখেন বক্তারা।

এ্যারোমা দত্ত বলেন, এই হামলার উদ্দেশ্য বলেন মুক্তবুদ্ধির চর্চাকে সমূলে বিনাশ করা। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে যাতে আঘাত করা না হয় বারবার।

আয়োজকরা বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে দেশের মানুষ। স্ফুলিঙ্গ আবার ছড়াব। আর এই দেশে জঙ্গিবাদের ঠাই নাই।