সম্মেলন প্রত্যাশীদের মাথা ফাটালো ছাত্রলীগের সম্মেলন বিরোধীরা


ঢাবি প্রতিনিধি,সেন্ট্রাল ডেস্ক | Published: 09:11 PM, March 09, 2018

IMG

ছাত্রলীগের সম্মেলনপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মারধর করেছে সম্মেলনবিরোধী অংশের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলের সামনের রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে। এতে দুইজেনর মাথা ফেটে যায়। পরবর্তীতে মারাত্মক আহত অবস্থায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহতরা হলেন- সূর্যসেন হল ছাত্রলীগের সাবেক শিক্ষা ও পাঠচক্রবিষয়ক সম্পাদক মিশকাত হোসেন ও সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি এম এম কামাল উদ্দিন।

এছাড়া স্যার এ এফ রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মী সাগর রহমানকেও মারধর করা হয়। তারা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী। এর মধ্যে কামাল মাস্টার্সে আর মিশকাত ও সাগর চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত। হামলায় মিশকাত ও সাগরের মাথা ফেটে যায়। এছাড়া কামালও আঘাতপ্রাপ্ত হন।

আহতদের মধ্যে মিশকাত ও সাগরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের প্রথমে ১০৩ নাম্বার ওয়ার্ডে রাখা হয়। পরবর্তীতে সিটিস্ক্যান শেষে তাদের ৬০১ নাম্বার ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তারা ওই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিল।

আহতরা জানান, হামলায় অংশ নেয় সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের উপদফতর সম্পাদক মো. ইমরান হোসেন সাগর (স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউট), কর্মসূচিবিষয়ক উপসম্পাদক মো. রাসেল রানা সোহেল (টেলিভিশন, ফিল্ম অ্যান্ড ফটোগ্রাফি বিভাগ), উপক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক মো. আসাদ আহমেদ (মনোবিজ্ঞান), সারওয়ারসহ (ব্যাংকিং) ছাত্রলীগের ২০-২৫ জন নেতাকর্মী। তারা সবাই সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সারওয়ার আহমেদের অনুসারী।

আহত কামাল উদ্দিন জানান, সূর্যসেন হলের ১৬৯ কক্ষ থেকে দুপুরে খাওয়া-দাওয়া শেষে মিশকাত ও সাগর বের হচ্ছিল। এ সময় হলে গেটে ২০-২৫ জনের একটি দল দাঁড়িয়ে ছিল। একটু পর ওই দলটি তাদের পিছু নেয়। মিশকাত এভাবে অনুসরণ করার কারণ জিজ্ঞাসা করলে ‘সম্মেলন চাইছিলি না!’ বলে মারধর শুরু করে। তারা ইট দিয়ে মিশকাত ও সাগরের মাথায় বাড়ি দেয়। এতে মাথা ফেটে যায়। তাদের দাবি, সম্মেলনের পক্ষে লেখালেখির কারণেই এ হামলা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম সারওয়ারকে ফোন করলে তার মুঠোফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ‘ফার্স্ট ইয়ার ফার্স্ট ইয়ার ভুলবোঝাবুঝি হয়েছে বলে শুনেছি। তবে সম্মেলনপ্রত্যাশী কারও উপরে হামলা হয়েছে এমন শুনিনি। এরপরেও যদি এমন হয়ে থাকলে তাহলে ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেব।’

প্রসঙ্গত, আগামী ৩১ মার্চ ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখ নির্ধারিত হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের একাংশ ছাত্রলীগের সম্মেলন চাইছে আবার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারী একটি অংশ সম্মেলন চাইছে না। এ অবস্থার মধ্যে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জানান ৩১ মার্চ সম্মেলন হচ্ছে না। এরপরই সম্মেলনপ্রত্যাশী অংশের ওপর এ হামলা হলো।










ক্যাম্পাস বিভাগের আরও সংবাদ