২৯ মার্চ রাতে নিজ ঘরেই খুন পিপি রথীশ: র‌্যাব


রংপুর প্রতিনিধি,কান্ট্রি ডেস্ক | Published: 07:15 PM, April 04, 2018

IMG

নিখোঁজের দুই মাস আগেই রংপুরের বিশেষ জজ আদালতের পিপি ও আওয়ামী লীগ নেতা রথীশ চন্দ্র ভৌমিককে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত ২৯ মার্চ রাতে নিজ ঘরেই খুন করা হয় রথীশ চন্দ্রকে। পিপির স্ত্রী স্নিগ্ধা ভৌমিকের সহায়তায় তার কথিত প্রেমিক কামরুল তাকে হত্যা করেন।

বুধবার রংপুর র‌্যাব-১৩ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় ওই আইনজীবীর স্ত্রী এবং তার কথিত প্রেমিকসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলন র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের স্ত্রী স্নিগ্ধা ভৌমিকের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল কামরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে। কামরুল স্নিগ্ধার সহকর্মী । স্নিগ্ধা ও কামরুল দুই মাস আগেই রথীশ চন্দ্রকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত ২৯ মার্চ রাতে ভাত ও দুধের সঙ্গে ১০টি ঘুমের বড়ি খাইয়ে রথীশ চন্দ্রকে অচেতন করেন স্নিগ্ধা। এরপর স্নিগ্ধা ও তার প্রেমিক মিলে রথীশ চন্দ্রকে গলায় ওড়না পেচিয়ে হত্যা করে লাশ ঘরের মধ্যেই রেখে দেন। পরদিন ভোরে সবার অগোচরে কামরুল বাবুপাড়ার ভৌমিকের বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। পরে সকাল ৯টায় কামরুল একটি ভ্যান নিয়ে রথীশ চন্দ্রের বাড়িতে আসেন। স্নিগ্ধা আলমারির ভেতর রথীশ চন্দ্রের মরদেহ ঢুকিয়ে ভ্যানে করে নিয়ে যায় কামরুলের ভাইয়ের মোল্লাপাড়ার নির্মাণাধীন একটি বাড়িতে। সেখানে আরো তিনজন মিলে লাশটি গর্ত করে মাটিচাপা দেয়।

বেনজির আহমেদ আরও বলেন, রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের স্ত্রী স্নিগ্ধা ভৌমিক ও তার কথিত প্রেমিক কামরুল তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। মাত্র ৩০০ টাকার বিনিময়ে তারা দুজন ছাত্রকেও এ কাজে ব্যবহার করেন। তারা হলো— মোল্লাপাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে সবুজ ইসলাম (১৭) ও একই এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে রোকনুজ্জামান (১৭)। তাদেরকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিখোঁজের পাঁচ দিন পর মঙ্গলবার রাতে ওই বাড়ির মেঝে খুড়ে রথীশ চন্দ্রের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এর আগে বুধবার সকালে র‌্যাব ও পুলিশ জানায়, জাপানি নাগরিক হত্যা ও মাজারের খাদেম হত্যা মামলার পিপি ছিলেন রথীশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনা। গত শুক্রবার (৩০ মার্চ) বাবু সোনার পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় বাবু সোনা নিখোঁজ হয়েছেন। তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এরপর বিভিন্ন সংগঠন তাকে উদ্ধারে মানববন্ধন, সমাবেশ, অনশনসহ নানা কর্মসূচি পালন করে। এরপরই মাঠে নামে র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তারা প্রথমেই পরকীয়ার বিষয়টি মাথায় রেখে তদন্তে নামেন। এরপর পুলিশ বাবু সোনার স্ত্রী তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা স্নিগ্ধা ভৌমিক ও তার প্রেমিক একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কামরুল ইসলামের মোবাইল ফোনের কললিস্ট বের করে। কললিস্ট দেখে আঁতকে ওঠে পুলিশ। প্রতিদিন প্রেমিক-প্রেমিকা জুটি ৩০ থেকে ৩৫ বার মোবাইলে কথা বলতেন। ওই কললিস্ট দেখে সন্দেহ হলে শনিবার রাতে নগরীর রাধাবল্লভের বাড়ি থেকে প্রথমে গ্রেপ্তার করা হয় কামরুল ইসলামকে। তাকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এরপর হত্যাকাণ্ডের তথ্য জানায় কামরুল।

মঙ্গলবার রাতে র‌্যাব বাবু পাড়ার বাড়ি থেকে স্নিগ্ধা ভৌমিককে গ্রেপ্তার করে। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব মঙ্গলবার রাতে সোয়া ১টার দিকে রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের বাবুপাড়ার বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে মোল্লাপাড়ায় খাদেমুল ইসলাম জাফরীর নির্মাণাধীন বাড়ির মেঝে থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

লাশ উদ্ধারের পর রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক, রংপুর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক, রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু ও অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিনকে ঘটনাস্থলে নেওয়া হয় লাশ শনাক্তের জন্য। দুর্গন্ধে ওই এলাকায় যাওয়া দুষ্কর হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে সাংবাদিকরাও ছুটে যান সেখানে। লাশটি ফুলে যাওয়ায় প্রথম দিকে কেউ চিনতে পারছিলেন না। এরপর সুশান্ত ভৌমিক ও জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিন খুন হওয়া রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের পায়ের জুতা দেখে লাশ শনাক্ত করেন। পরে বুধবার ভোরে লাশটি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, রংপুর তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন রথীশ চন্দ্র ভৌমিক। ওই বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে চাকরি করতেন রথীশ চন্দ্রের স্ত্রী স্নিগ্ধা ভৌমিক ও কামরুল ইসলাম। দীর্ঘদিন ধরে তাদের মধ্যে পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে রথীশের মাঝে মাঝে ঝগড়া হতো। পরকীয়ার কারণে অশান্তি ছিল পরিবারে। বিষয়টি নিয়ে অনেকবার ঘরোয়াভাবে বিচারও হয়। কিন্তু তারপরও পরকীয়া থেকে ফেরানো যায়নি স্ত্রী স্নিগ্ধাকে। রথীশ চন্দ্রের এক ছেলে ও এক মেয়ে। ছেলে ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। বাড়িতে তেমন একটা লোকজন থাকতো না। রথীশও বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে গভীর রাতে ফিরতেন।

রংপুর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক বলেন, 'আমার সহকর্মী রথীশ চন্দ্রকে হত্যা সঙ্গে যারা জড়িত তাদের আমি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। যেন কেউ আর এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে সাহস না পায়।'

রথীশ চন্দ্র ভৌমিক হিন্দু বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি এবং বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় রথীশের ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক বাদী হয়ে কোতয়ালি থানায় একটি মামলা করেছেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের পিপি জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিন বলেন, 'আমি রথীশ চন্দ্রের জুতা দেখে চিনতে পারি। তিনি একজন ভাল মানুষ ছিলেন। এ ধরনের হত্যাকাণ্ড মেনে নেওয়া যায় না।'

রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু বলেন, 'রথীশ চন্দ্র ভৌমিক জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। আমরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে দাবি জানাই এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সবাইকে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।'

রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক বলেন, 'আমি দাদার লাশ দেখে তাকে শনাক্ত করি।এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।'