সংসদের ৬০ আসনের সীমানা পুন:নির্ধাণ সংক্রান্ত শুনানি শুরু


, | Published: 03:34 PM, April 21, 2018

IMG

জাতীয় সংসদের ৬০টি আসনের সীমানা পুনঃনির্ধাণ সংক্রান্ত শুনানি শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে কমিশন কার্যালয়ে ৮ জেলার অন্তত ১৩টি আসনের সীমানা সংক্রান্ত শুনানিতে অংশ নেন সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীরা।

গত ১৪ মার্চ নির্বাচন কমিশন নতুন সীমানার যে খসড়া ঘোষণা করেছিল, তাতে পাল্টে গিয়েছিল ৪০টি সংসদীয় আসনের সীমানা। এর আগে জাতীয় সংসদের কুড়িগ্রাম চার আসনে সংযুক্ত ছিল রৌমারী ও রাজীবপুর উপজেলা এবং চিলমারী উপজেলার নয়াহাট, অষ্টমীচর ও উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়ন। কিন্তু সংশোধনী খসড়া অনুযায়ী কুড়িগ্রাম চারে রৌমারি, রাজীবপুরের পাশাপাশি থাকছে গোটা চিলমারী উপজেলা। আর উলিপুর উপজেলার পুরোটা থাকছে কুড়িগ্রম ৩ আসনে।

এ নিয়ে বিভক্ত কুড়িগ্রাম ৪ এলাকার জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেন নির্বাচন কমিশনের শুনানিতে। একপক্ষ বলছেন, কমিশনের সংশোধনীর সিদ্ধান্ত ঠিক: কারণ- সীমানা নির্ধারণ অধ্যাদেশ অনুযায়ী উপজেলাকে বিভক্ত করে একাধিক আসনে দেয়া যায় না। আর  দিলেও নানা প্রশাসনিক ঝামেলা তৈরি হয়।

আর অন্য পক্ষ বলছে চিলমারী উপজেলার মাঝ বরাবর বহ্মপুত্র নদ। একপাশ থেকে আরেকপাশে এসে সাধারণ মানুষের জননেতার দেখা পেতে পোহাতে হবে নানান ঝক্কি, তাই ভাল ছিল বিভক্ত চিলমারীর সীমারেখাই।

এরকম নানান যুক্তি আর অভিযোগ নিয়ে শনিবার শুনানিতে অংশ নেন নীলফামারী-৩, রংপুর ১ ও ৩, চাপাইনবাবগঞ্জ-১, সিরাজগঞ্জ ১ ও ২, পাবনা ১ ও ২, বরগুন ১ এবং পিরোজপুর১, ২, ৩ আসনের জনপ্রতিনিধিরা।

প্রধান নির্বাচন কমিশনারেরর নেতৃত্ব কমিশনাররা আগামী ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত শুনবেন এই যুক্তি তর্ক।  এরপর ৩০ এপ্রিল আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য চূড়ান্ত সংসদীয় আসন এর সীমানা বিষয়ে ঘোষণা দেবে নির্বাচন কমিশন।