শুক্রাণু বা ডিম্বাণুর সাহায্য ছাড়াই প্রাথমিক পর্যায়ের ভ্রুণের সফল রুপ দান


, | Published: 04:13 PM, May 05, 2018

IMG

শুক্রাণু-ডিম্বাণুর নিষেক নয়, নয় প্রচলিত ক্লোন পদ্ধতি। শুধু স্টেম সেল একত্রিত করে প্রাথমিক পর্যায়ের ভ্রুণ সৃষ্টির গবেষণায় সফল হয়েছেন নেদারল্যান্ডসের বিজ্ঞানীরা। এর ফলে বন্ধ্যাত্বসহ বিভিন্ন জটিল চিকিৎসায় খুলে যেতে পারে নতুন দুয়ার।

প্রকৃতির দেখানো পথের বাইরে গিয়ে প্রাণ সৃষ্টির চেষ্টা করছিলেন বিজ্ঞানীরা অনেক দিন ধরেই। শেষ পর্যন্ত সফল নেদার‌ল্যান্ডসের বিজ্ঞানীরা। শুক্রাণু বা ডিম্বাণুর সাহায্য ছাড়াই শুধু স্টেম সেল একত্র করে প্রাথমিক পর্যায়ের ভ্রুণ সৃষ্টি করতে পেরেছেন তাঁরা। 

স্টেম সেল হলো জীবদেহের আদি কোষ। প্রায় ২০০ রকমের কোষ থাকে। জন্মের সময় একটি থেকেই বাকি সব ধরনের কোষ তৈরি হয়। পূর্ণাঙ্গ দেহেও থেকে যায় আদি কোষগুলো। গবেষণা দলের প্রধান নেদারল্যান্ডসের মাসট্রিখট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক নিকোলাস রিভরন জানান, ভ্রুণ তৈরিতে ইঁদুরের দুই ধরনের স্টেম সেল একত্রিত করেছেন তাঁরা। এভাবে ইঁদুরের উন্নত ভ্রুণ তৈরিতে সময় লাগবে আরো বছর তিনেক। তবে মানুষের ভ্রুণ বানাতে লাগতে পারে ‌১২ বছর বা তারো বেশি।

অধ্যাপক রিভরন জানান, এটিই কৃত্রিম উপায়ে সৃষ্ট প্রথম ভ্রুণ, যা পূর্ণাঙ্গ অবয়ব গঠনে সক্ষম। অবশ্য এভাবে মানব প্রজননের পক্ষে নন তিনি। বলছেন: জীবিত কারো ক্লোন তৈরি অনৈতিক।

শংকিত রক্ষণশীলরাও। তাঁদের দুশ্চিন্তা: এর ফলে তৈরি হতে পারে ‘মানব-ক্লোনের সেনাবাহিনী।'

এ পদ্ধতিতে ভ্রুণ সৃষ্টি করে তা মাতৃগর্ভে স্থাপনের মাধ্যমে বন্ধ্যাত্ব সমস্যার সমাধান সম্ভব। এমনকি নতুন চিকিৎসাপদ্ধতির পরীক্ষা চালাতেও এভাবে সৃষ্ট ভ্রুণ ব্যবহার করা যেতে পারে।