‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সাক্ষ্য দেয়া কাউকে অত্যাচার করলে তারাও যুদ্ধাপরাধী’


নিজস্ব প্রতিবেদক :, | Published: 03:40 PM, May 17, 2018

IMG

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সাক্ষ্য দেয়া কাউকে অত্যাচার করলে তাদেরকেও যুদ্ধাপরাধী হিসেবে গণ্য করে শাস্তি দিতে হবে। বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সকালে গণভবনে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা শুভেচ্ছা জানাতে গেলে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের জন্য যা যা করা দরকার, সবই করছে সরকার। তবুও একটি মহল উন্নয়ন দেখেনা। গণতন্ত্র দেখেনা। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার যে চক্রান্ত শুরু হয়েছিল, তা এখনো চলছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৭৫ পরবর্তী সরকারগুলোর দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মানিলন্ডারিংয়ের কারণেই দেশ এগোতে পারেনি। পদ্মা সেতু বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সততার জোর ছিল বলেই বিশ্বব্যাংককে চ্যালেঞ্জ দিয়ে পদ্মা সেতু বানাচ্ছে সরকার।

এসময় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ঐক্যবদ্ধ থেকে সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করতে সর্বস্তরের নেতা-কর্মীর প্রতি আহবান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটা কথা মনে রাখতে হবে, সংগঠন যদি শক্তিশালী হয়, সংগঠনে যদি ঐক্য থাকে আর এই সংগঠন যদি জনগণের পাশে থেকে জনমত সৃষ্টি করতে পারে তখনই যেকোন কিছু অর্জন করা সম্ভব হয়। যা আমরা বার বার প্রমাণ করেছি।’

১৯৭৫ এর বিয়োগান্তক অধ্যায়ের পর শেখ হাসিনা প্রবাসে দীর্ঘদিন রিফ্যুজি হিসেবে কাটাতে বাধ্য হবার পর আওয়ামী লীগ তাঁকে সভাপতি নির্বাচন করলে ১৯৮১ সালের এই দিনে তিনি দেশে ফিরে আসেন।