রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজের উদ্বোধন


, | Published: 06:36 PM, July 14, 2018

IMG

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার পাবনায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ‘রিঅ্যাক্টর বিল্ডিং (উৎপাদন কেন্দ্র)’ নির্মাণ কাজের দ্বিতীয় পর্যায়ের ঢালাইয়ের কাজ উদ্বোধন করেছেন। এসময় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সম্পূর্ণ নিরাপত্তা পদ্ধতি অবলম্বন করে এমনভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে যাতে এখানে প্রাকৃতিক বা মনুষ্য সৃষ্ট কোন দুর্ঘটনা ঘটতে না পারে।’

কংক্রিট ঢালাইয়ের মধ্য দিয়ে ২০১৭ সালের নভেম্বরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের কাজ শুরু হয়েছিলো রূপপুরে। এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মাধ্যমেই ‘বিশ্ব পরমাণু শক্তির এলিট ক্লাবের ৩৩তম দেশ হিসাবে তালিকাভুক্ত হবে বাংলাদেশের নাম। শনিবার রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ইউরি ইভানোভিচ বোরিসভকে সংগে নিয়ে দ্বিতীয় ইউনিটের অবকাঠামোর কাজ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের জন্যে কোন ঝুঁকি যাতে সৃষ্টি না হয়, সে বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অলম্বন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী জানান, রাশিয়া এই প্লান্টের বর্জ্য নিতে রাজী হয়েছে এবং এ বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে একটি চুক্তিও স্বাক্ষর হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নিরাপত্তার দিকটায় বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছি। যে কোন দুর্যোগে আমাদের এই পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে দিকটি বিবেচনায় নিয়েই এই প্ল্যান্টের ডিজাইন করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উত্তরণের যাত্রায় এই পারমাণবিক কিদ্যুৎ কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

সরকার দেশের প্রত্যেকটি মানুষের ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো পৌঁছে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা বাড়ানোর মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে।

রাশিয়ান ফেডারেশনের উপ-প্রধানমন্ত্রী ইউরি ইভানোভিচ বরিসভ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।  বিশেষ অতিথির ভাষনে রাশিয়ার উপ প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের জন্মলগ্ন থেকে দু দেশের সু সম্পর্ক মনে করিয়ে দেন। সে সঙ্গে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার ভুয়সি প্রশংসা করে পাশে থাকার অঙ্গীকার করেন।

রোসাটম-এর প্রথম মহাপরিচালক ল্যাক্সিন আলেকজান্দার, আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি কমিশন (আইএই)-র পরিচালক দহি হ্যান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী এ প্রকল্পে সহযোগিতার জন্য এ সময় রুশ সরকার ও জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। এসময় প্রধানমন্ত্রী রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল তৈরির জন্য তাঁর সরকার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বলেও উল্লেখ করেন।