ক্রোয়েশিয়াকে কাঁদিয়ে দ্বিতীয়বার মত বিশ্ব সেরা ফ্রান্স


, | Published: 12:51 AM, July 16, 2018

IMG

নতুন ইতিহাস নয়। ৯৮ চ্যাম্পিয়নরাই, দ্বিতীয়বার বিশ্ব সেরার মুকুট পরেছে। তৈরি হয়ে ফরাসি কাব্য। প্রথমবার ফাইনাল খেলা ক্রোয়েশিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে ফ্রান্স।

গ্যালারিতে ৭৮ হাজার দর্শক। আর টিভি পর্দায় কোটিরও বেশি। সবার চোখ মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপের ফাইনালে।

প্রথমার্ধে প্রতি মুহুর্তে উত্তেজনায় ঠাসা, দু’দলের সেই লড়াই সত্যিই মন কেড়েছে দর্শকদের। যদিও, দ্বিতীয়ার্ধে ফরাসি কৌশলে ধরাশায়ী হয়  ক্রোয়েশিয়া। তবে, লুঝনিকির সবুজ গালিচায় রচিত হয়েছে ফরাসি কাব্য। মস্কোভা নদীও যার সাক্ষী হয়ে থাকলো।

ফাইনাল প্রথমবার। তবে, চাপ নিয়ন্ত্রনে রেখে শুরুটা গোছানো ছিলো ক্রোয়েশিয়ার। ২০ বছরে ৩টি ফাইনাল খেলা ফ্রান্স ভালো চাপেও ছিল মিনিট দশেক।

যার গোলের সৌজন্যে প্রথমবার ফাইনাল খেলেছে ক্রোয়েশিয়া, সেই মানজুকিচের আত্মঘাতি গোলে ১৮ মিনিটে লিড ফ্রান্সের। রাশিয়া বিশ্বকাপে যা ১২তম আত্মঘাতি গোল।

নক-আউট, কোয়ার্টার আর সেমি। ৩ রাউন্ডে পিছিয়ে পড়েও ম্যাচে ফেরার ইতিহাস আছে  ক্রোয়াটদের। ১০ মিনিট পর, সেই পরিসংখ্যান বলোবদ রাখেন ক্রোয়েশিয়া পেরিসেচ।

শুধু ভালো খেলা নয়, প্রয়োজন কপালও।  ফ্রান্স, সেটা পায় রেফারির তৃতীয় চোখ ভিএআরের কারণে। ৩৮ মিনিটে গ্রিজম্যানের পেনাল্টি গোলে আবারো লিড ৯৮ চ্যাম্পিয়নদের।

দ্বিতীয়ার্ধে ক্রোয়াটরা আক্রমনাত্মক খেলার যে আভাস দেয়, তা হিতে বিপরীত হয়। শরীর ছেড়ে দেয়া ডিফেন্সের সুযোগ নিয়ে ৫৯ মিনিটে স্কোরশিটে নাম তোলেন পগবা।

ফরাসিদের গোলোৎসবে এদিন বাদ য়ায়নি কিশোর তারকা এমবাপ্পেও। ফ্রান্সকে ৪-১-এ এগিয়ে দেয়া এমবাপ্পে ফাইনালে গোল করে কিংবদন্তী পেলের পাশে নাম লিখিয়েছেন।

৬৯ মিনিটে হুগো লরিসের বোকামিতে আত্মঘাতি গোল করা সেই মানজুকিচের গোলে ব্যাবধান কমায় ক্রোয়েশিয়া। বাকী সময় আর কেউ গোল না করায় ক্রোয়েশিয়াকে কাঁদিয়ে দ্বিতীয় বারের মত শিরোপার উৎসবে ভাসে ফ্রান্স।