কুষ্টিয়ায় আদালত প্রাঙ্গনে হামলায় রক্তাক্ত মাহমুদুর রহমান


, | Published: 06:53 PM, July 22, 2018

IMG

কুষ্টিয়ায় একটি মানহানি মামলায় জামিন নিতে এসে দুবৃর্ত্তদের হামলার শিকার হয়েছেন আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান। হামলার তার মাথা ও মুখ জখম হয়েছে। এছাড়া তার বহনকারি গাড়িটি ভেঙ্গে দেয় হামলকারীরা। পরে একটি অ্যাম্বুলেন্স করে বিকেল ৫টার কিছু সময় আগে তিনি ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে যান।

বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা ও টিউলিপ সিদ্দিকীকে নিয়ে কটুক্তি করে বক্তব্যে দেয়ায় মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষারের দায়ের করা মানহানি মামলায় জামিন মনজুর করেন আদালত। আজ রোববার দুপুর ১২টায়  কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক এম এম মোর্শেদ ১০হাজার টাকা জামানতে স্থায়ীভাবে জামিন মঞ্জুর করেন।

মাহমুদুর রহমান আদালতে আসার খবরে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার ও সাধারণ সম্পাদক সাদ আহমেদের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ কর্মীরা আদালত চত্বরে অবস্থান নেয়। জামিন পাওয়ার পর বেলা সোয়া ১২টার দিকে মাহমুদুর রহমান আদালত থেকে বের হতে গেলে তার উপর হামলার চেষ্টা করে। এ অবস্থায় তিনি আদালত কক্ষে আশ্রয় নেন। তাকে বিকেল সোয়া ৪টা পর্যন্ত সেখানে অবরুদ্ধ করে রাখে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এরপর তিনি সেখান থেকে বেরিয়ে একটি ভাড়া করা প্রাইভেট কারে ওঠা মাত্রই হামলা চালায় দূবৃর্ত্তরা। লাঠি-সোটা ও ইট-পাটকেল দিয়ে গাড়িতে থাকা মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা চালানো হয়। এ সময় গাড়ির গ্লাস ভেঙ্গে কয়েকটি ইট তার মাথায় ও মুখে লাগে। এতে তার কপাল ও মুখ কেটে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে আইনজীবীরা একটি চেম্বারে নিয়ে যায়। এ সময় জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে ওই আইনজীবীর চেম্বারে হামলা চালানো হয়। হামলাকারীদের বেশ কয়েকজনের মুখ গামছা দিয়ে বাঁধা ছিল।